সিপিএ মার্কেটিং করে প্রতি মাসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করুন

CPA মার্কেটিং কি?

সিপিএ মার্কেটিং এর পূর্ন অর্থ হচ্ছে Cost Per Action। এফিলিয়েট মার্কেটিং এর গুরুত্বপূর্ন একটি পার্ট হচ্ছে সিপিএ মার্কেটিং। এটা নতুন একটি এডভাটাইজিংমডেল যাতে কিছু কাজের উপর নির্ভর করে পেমন্ট দেওয়া হয়। সি. পি. এ. (CPA) মার্কেটিং হল এমন এক ধরনের এফিলিয়েট মার্কেটিং যার মাধ্যমে ছোট কিছু কাজ যেমন ইমেইল সাবমিট, জিপ কোড সাবমিট, ডাউনলোড, শেয়ার, কোন সাইটে রেজিষ্ট্রেশন ইত্যাদি কাজের মাধ্যমে ইনকাম করা যায়। এজন্যই একে বলা হয়ে থাকে কস্ট পার এ্যাকশন তার মানে যে কোন এ্যাকশন ফুলফিল হলেই কমিশন পাওয়া যায়। সিপিএ মার্কেটিং এর মাধ্যমে গড়ে প্রতিটা লিড থেকে ১ ডলার থেকে ৪ ডলার আয় হয়। তাই বর্তমানে প্রচলিত এডভাটাইজিং পেমেন্ট মডেল গুলির চেয়ে সিপিএ মার্কেটিং এর মাধ্যমে সহজে কয়েকগুন বেশি আয় করা সম্ভব। সিপিএ মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে অনেক বেশি গবেষণা ছাড়াই শুধুমাত্র নিয়ম মত কাজ করলে প্রথম থেকেই ভালো আয় করা যায়। অনলাইনে আয়ের সহজ মাধ্যম গুলোর একটি CPA মার্কেটিং । কেননা, এখানে কোন প্রোডাক্ট সেল করতে হবে না । কোম্পানির জন্য লিড জেনারেট করার বিনিময়েই কমিশন পাওয়া যাবে। সহজ কথায়, কোন কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রির জন্য কাস্টমার নিয়ে আসা। যতজন কাস্টমার নিয়ে আসা যাবে তার বিনিময়ে কোম্পানি কমিশন দিবে। সে কাস্টমার প্রোডাক্ট না কিনলেও কোম্পানি কমিশন দিবে।

এ্যাকশন বলতে কি বোঝায়?

কোনো অফার কেনা

গেম অথবা কোনকিছু ডাউনলোড করা

কোন সাইটে সাইন আপ করা

অনলাইনে কোন গেইম এর জন্য অ্যাকাউন্ট খোলা

গেইম ডাউনলোড করা

ইমেইল আইডি দেয়া

সাবস্ক্রাইব করা

এমনকি কোন সাইটে নিজের পোস্ট কোড দেয়াও এক একটা এ্যাকশন।

CPA মার্কেটিং কিভাবে কাজ করে?

CPA মার্কেটিং এর জন্য কোন বিনিয়োগ করতে হবে না। শুধুমাত্র কোম্পানির মার্কেটিং করে লিড তৈরি করার জন্য কমিশন দেওয়া হবে। যেমনঃ আপনার মাধ্যমে কেউ ফর্ম পূরণ করলে, ফর্ম পূরণের জন্য আপনাকে কোম্পানি নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন দিবে। অথবা আপনার মাধ্যমে কেউ আমার কোম্পানির গেইম ডাউনলোড করলে কিংবা গেইম খেলার জন্য অ্যাকাউন্ট তৈরি করলে আপনি কমিশন পাবেন। আর এ কারনই CPA মার্কেটিং অধিক জনপ্রিয় ও আয়ের সহজ মাধ্যম।

সিপিএ মার্কেটিং এর কিছু আলোচিত বিষয়

Advertiser

এ্যাডভারটাইজার বিভিন্ন CPA নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। হতে পারে সে রিটেইলার, অনলাইন রিটেইলার অথবা মার্চেন্ট।

Publisher or Marketer

পাবলিশার কমিশনের জন্য কোন প্রোডাক্ট বা সার্ভিস প্রমোট করে। সহজ কথায় এক্ষত্রে আপনি, আমিই সেই পাবলিশার বা মার্কেটার।

PPL (Pay-Per-Lead)

সহজ ভাষায়, আপনাকে প্রতিটি লিডের জন্য পে করা হবে। ধরুণ, আপনি কোনো CPA অফার সিলেক্ট করে আপনার সাইটে প্রচার করলেন, একজন ঐ লিংকের মাধ্যমে প্রবেশ করে এ্যাডভারটাইজার সাইটে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করলো, তারমানে একটি লিড তৈরি হল।  এই একটি লিডের জন্য আপনাকে কমিশন দেওয়া হবে।

PPC (Pay-Per-Click)

এটা হল সেই কমিশন বা নিদিষ্ট টাকা যা পাবলিশারকে পে করা হয়ে থাকে তার সাইটে থাকা প্রোডাক্টের ব্যানার বা লিংকে প্রতিটা ক্লিকের জন্য।

CPA নেটওয়ার্ক

নেটওয়ার্ক নির্বাচনের ক্ষেত্রে একটু হিসেব করে নির্বাচন করা দরকার। বর্তমানে সেরা সিপিএ নেটওয়ার্ক গুলোর মধ্যে ৩ টি নিচে উল্লেখ করা হলঃ

Adwork Media

CPAGrip

CPALead

CPA মার্কেটিং করতে যা প্রয়োজনীয়

একটি ওয়েবসাইট অবশ্যই থাকতে হবে। ফ্রি ডোমেইন ব্যবহার করে একটি নিজস্ব ওয়েব সাইট বানানো যাবে।

CPA মার্কেটিং করার জন্য পে-পার-ক্লিক সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে।

CPA মার্কেটিংয়ে কিকি অফার পাওয়া যায়:

পে পার লিড এই অফার গুলোতে মূলত থাকে সাইনআপ, ইমেইল সাবমিট ইত্যাদি ।

পে পার ডাউনলোড এই অফার গুলোতে মূলত থাকে সফটওয়ার, গেম ডাউনলোড ইত্যাদি ।

পে পার সেল এই ধরণের অফার গুলোতে মূলত যে প্রোডাক্ট থাকে ঐ প্রোডাক্ট সেল হইলে কমিশন পাওয়া যায়। যেমন: হেল্থ, ইনসিওরেন্স ইত্যাদি।

সিপিএ মার্কেটিং করে আয় করার নেটওয়ার্ক

যে-সব সাইট এ গেলে সিপিএ নেটওয়ার্ক খুঁজে পাওয়া যাবে তার একটা তালিকা নিচে দেওয়া হলো:

Peerfly.Com

MaxBounty.Com

CpaLead.Com

CpaGrip.Com

JvZoo.Com

MatoMy.Com

AdworkMedia.Com

Convert2Media.Com

ClickBooth.Com

উপরে দেওয়া এসব সাইটগুলোতে গেলে দুটো করে অপশন থাকবে

একটি হলো অ্যাডভারটাইজার

অন্যটি হলো পাবলিশার

এরপর পাবলিশার লেখাতে ক্লিক করলে সাইন আপ পেইজ আসবে, সেখানে সঠিক ইনফরমেশনগুলো দিয়ে এ্যাকাউন্ট করতে হবে।

যেহেতু আমরা অন্যের প্রোডাক্ট নিয়ে মার্কেটিং করব, তাই আমরা পাবলিশার। আর যদি আমরা নিজের প্রোডাক্ট নিয়ে মার্কেটিং করতাম, তবে আমরা অ্যাডভারটাইজার হতাম। আমাদের নিজেদের কোন প্রডাক্ট নেই, তাই আমরা অন্যের প্রডাক্ট সেলস এর জন্য কাজ করব।

প্রথমেই নিশ সিলেক্ট করতে হবে, যে কোন নিশ নিয়েই কাজ করা যাবে। নিশ মানে হচ্ছে বিষয়। কোন বিষয় নিয়ে মার্কেটিং করব সেটাই সিলেক্ট করতে হবে। আর এই বিষয়কেই অনলাইনের ভাষায় নিশ বলে। এমন একটা নিশ সিলেক্ট করতে হবে যার চাহিদা বর্তমানে আকাশচুম্বি। এই রকম কিছু অধিক চাহিদার নিশ হচ্ছে:

মেক মানি বা অনলাইন আয়

ফুড বা খাদ্য

ট্রাভেলিং

মোবাইল অ্যাপস্

বিভিন্ন সফটওয়্যার

এডুকেশন

হোম বেসড বিজনেস

হেলথ

তথ্য এবং প্রযুক্তি

উপরে উল্লেখিত এই নিশগুলোর চাহিদা মার্কেটে কখনই ফুরাবে না। কারন হচ্ছে, যেমন টাকা একটা নিশ আর টাকার চাহিদা মানুষের সব সমইয় থাকবে, তাই এটা একটা সুপার হট নিশ।

তারপর ধরুন ফুড, মানুষ যতদিন বেঁচে রবে ততদিন খাদ্যের প্রতি তাদের চাহিদা থাকবে। বর্তমান পৃথীবি হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির যুগ, তাই অনেকেই তথ্য ও প্রযুক্তি নিয়ে জানতে চাইবে বা কাজ করতে চাইবে, সে অর্থে এটাও একটা হট নিশ। এছাড়াও অনেক অনেক নিশ রয়েছে পৃথীবিতে। যে কোনো একটা নিশ সিলেক্ট করে সেটা নিয়ে এনালাইসিস করে কাজ শুরু করা যায়।

অফার কিভাবে প্রোমোট করা যায়

যে কোন উপায়ে অফার প্রমোট যায় যেমন:

১) বিভিন্ন সোসাল মিডিয়ার মাধ্যমে

২) ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে

৩) ওয়েব সাইটে ব্যানার এড বসিয়ে।

৪) ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করে, ইত্যাদি।

সিপিএ মার্কেটিং করে আয় করার সাকসেস মেথড

সিপিএ মার্কেটিং এ অফার প্রোমোট করতে ফ্রি বা পেইড এই দুই মেথডই কাজ করা যায়। তবে ফ্রি মেথড এ কাজ করলে সাকসেস রাতারাতি আসবে না, ধৈর্য ধরে কাজ কন্টিনিউ চালিয়ে যেতে হবে। আর পেইড মেথড নিয়ে কাজ করলে সাকসেস হওয়ার সম্ভবনা অনেক বেশি থাকে।

ফ্রি মার্কেটিং মেথড:

১) ব্লগ রাইটিং

ব্লগার ডট কম এ গিয়ে জিমেইল এ্যাকাউন্ট দিয়ে একটি ব্লগার এ্যকাউন্ট করে নেওয়া যাবে। এরপর সেখানে আমাদের নিশ রিলেটেড যে অফার বা প্রডাক্ট নিয়ে মার্কেটিং করব তার উপর ব্লগ লিখে ফ্রি মার্কেটিং করা যাবে।

২) এস এ ও

আমাদের অফার নিয়ে এস ই ও করে ফ্রি মার্কেটিং করা যাবে।

৩) ফেইসবুক ফ্রি মার্কেটিং

কিছু ফেইসবুক আইডি বানিয়ে তাতে অফার রিলেটেড নাম দিয়ে গ্রূপ পেইজ বানাতে হবে। তারপর সেখানে যে দেশের প্রডাক্ট নিয়ে কাজ করা হবে, সে দেশের মানুষের সাথে ফেসবুকে ফ্রেন্ড রিকুইয়েস্ট দিতে হবে। তাদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করতে হবে, তাদেরকে গ্রূপ পেইজে ইনভাইট করতে হবে। কারা আমাদের অফার এর উপর আগ্রহী তা জানার জন্য যা যা করার প্রয়োজন, তাই করতে হবে। অফার রিলেটেড নাম দিয়ে ফেইসবুকে সার্চ দিলে দেখা যাবে অনেক অনেক গ্রূপ আছে। এইসব গ্রূপ এর মেম্বারদেরকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট দিতে হবে। আর এই সব মেম্বারগুলোই হচ্ছে লেজার ট্রার্গেটেড ট্রাফিক যারা কিনা আমাদের অফার এর প্রতি আগ্রহী হতে পারে।

৪) ফোরাম

ফোরাম করেও মার্কেটিং করা যায়। ফোরাম হচ্ছে কমেন্ট এ আমরা যে-সব আলোচনা করি সে-রকম।

৫) ইউটিউব

ইউটিউব এ ভিডিও আপলোডের মাধ্যমেও ভিডিও মার্কেটিং করা যায়।

৬) ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে আমরা ট্রাফিক জেনারেট করতে পারি।

পেইড মার্কেটিং মেথডঃ

উপরোক্ত কাজ গুলোই আমরা করব তবে সেসব কাজের সাথে আমরা এক্সট্রা যোগ করব ইনভেস্ট যাতে আমাদের ইনকাম সম্ভবনা বেড়ে যায় এবং খুব তাড়াতাড়ি আমরা ফিডবেক পাই।

যেমন-

ফেইসবুকে আমরা আমাদের পোস্ট বুস্ট বা প্রমোট করব। আর আমাদের সেই পোস্ট হবে অফার নিয়ে। যাতে করে ট্রাফিক আমাদের পোস্ট পড়ে এবং ফাস্ট পেইজ সাবমিট করে বা তাদের মেইল সাবমিট করে। সেজন্য ফেইসবুককে আমাদের পে করতে হবে, আমরা চাইলে সর্বনিন্ম ১ ডলার এর ও বুস্ট করাতে পারি।

নিশ রিলেটেড কোন ওয়েবসাইট এ আমাদের অফার নিয়ে এডভাটাইজ দেওয়া। আর এই এ্যাডের মাধ্যমেও ট্রাফিক জেনারেট হবে।

তাছাড়া ইউটিউব এ ভিডিও মার্কেটিং করেও লিড জেনারেট করা যায়। সেক্ষেত্রে ইউটিউব এর ভিডিওর এ্যাড করাতে হবে যার জন্য ইনভেস্ট করা লাগবে।

কিভাবে সিপিএ মার্কেটিং শুরু করা যাবে? 

সিপিএ মার্কেটিং এ অফার গুলোর প্রমোশন, ল্যান্ডিং পেজ অথবা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে । নিম্নোলিখিত ভাবে স্টেপ বাই স্টেপ সিপিএ মার্কেটিং করা হয়:

১ম স্টেপ: নিশ এবং অফার সিলেক্ট

 সর্ব প্রথমে নিশ সিলেক্ট করতে হবে। অনেক অনেক অফার আর অনেক অনেক মার্কেটপ্লেসের মধ্যে কোনটি সিলেক্ট করা হবে তা নিচের দেয়া সাইটটি ভিজিট করে সহজে বাছাই করা যাবে।

https://www.offervault.com

ওয়েবসাইট টি থেকে জেনে নেওয়া যাবে কোনো একটি মার্কেটপ্লেসের ডিটেলস এবং কোন কোন অফারের পেমেন্ট কেমন। ধরাযাক এখান থেকে সিলেক্ট করা হয়েছে হেলথ নিশ । তাহলে হেলথ লিখে সার্চ বক্স-এ সার্চ দেওয়া হলে এখন এইখানে সব হেলথ রিলেটেড টপ অফার গুলো শো করবে। লিস্ট থেকে যে অফার ভালো লাগবে সেটিতে ক্লিক করতে হবে। অফারটিতে ক্লিক করার পর ডিটেলস শো করবে। অফারটির ডিটেলস জানার পর যদি মনে হয় যে অফারটি নিয়ে কাজ করা যাবে তাহলে অফারটির ফুল ল্যান্ডিং পেজ চেক করে নিতে হবে । কারণ ল্যান্ডিং পেজ যদি মানসম্মত না হয় তাহলে লিড কম আসবে ।

২য় স্টেপ: মার্কেটপ্লেসে জয়েন

নিশ এবং অফার সিলেক্টশন হয়ে গেলো । এইবার মার্কেটপ্লেস এ জয়েন করতে হবে । যে অফার টি সিলেক্ট করা হয়েছে সেই অফারটি যে মার্কেটপ্লেসে রয়েছে সে মার্কেটপ্লেসে জয়েন করতে হবে। এক এক মার্কেট প্লেসের জয়েনিং রেকোয়ার্মেন্টস এক এক ধরণের হয় । তবে যেগুলোতে জয়েন করা সহজ CPA মার্কেটিং করার জন্য শুরুর দিকে এমন মার্কেটপ্লেস গুলোতে জয়েন করা উচিত। www.offervault.com এর মাধ্যমে চেক করে নিতে হবে আমরা যে মার্কেটপ্লেসে জয়েন করতে চাচ্ছি সেটি কেমন । তারপর পছন্দের মার্কেটপ্লেস থেকে আমাদের সিলেক্ট করা নিশ রিলেটেড অফার বাছাই করে নিতে হবে।

৩য় স্টেপ: পছন্দ করা অফার প্রমোশন

নিশ সিলেক্ট, মার্কেটপ্লেস সিলেক্ট এবং অফার সিলেক্ট কমপ্লিট এইবার অফারটি প্রমোট করতে হবে । CPA মার্কেটিং অফার প্রমোট করা যায় দুইভাবে যথা:

১) ল্যান্ডিং পেজ

২) ওয়েবসাইট

১) ল্যান্ডিং পেজ

আমরা যদি সরাসরি আমাদের অফারের ল্যান্ডিং পেজের মাধ্যমে অফার প্রমোট করি তাহলে আমাদের কাছে ইমেইল লিস্ট গুলো থাকবে না । আমরা কেন ইমেইল কালেক্ট করে রাখবো? ধরা যাক আমরা এখন একটি হেলথ রিলেটেড অফার প্রমোট করেছি, আর এই অফার প্রমোট করার সময় যে ইমেইল লিস্ট গুলো আমাদের কাছে থাকবে পরবর্তীতে আমরা যদি হেলথ রিলেটেড অন্য কোনো অফার প্রমোট করি তাহলে আমরা এই ইমেইল লিস্ট ব্যবহার করে সহজেই লিড নিয়ে আসতে পারবো।

২) ওয়েবসাইট

যে নিশ সিলেক্ট করা হয়েছে সেই নিশ রিলেটেড একটি ডোমেইন হোস্টিং নিয়ে ওয়েবসাইট ডেভেলপ করে আমাদের নিশ রিলেটেড আর্টিকেল লিখে পছন্দকৃত অফারটির লিংক আমাদের আর্টিকলে ব্যবহার করে লিড নিয়ে আসা যাবে।

সিপিএ মার্কেট প্লেসে  কিভাবে একাউন্ট এর  অ্যাপরুভাল পাওয়া যায়

প্রথমে জানতে হবে সিপিএ মারকেটপ্লেস এর লিস্ট কোথায় পাওয়া যাবে। Affpaying.com সাইটে ভিজিট করলে অনেক সিপিএ মার্কেটপ্লেসের তথ্য পাওয়া যাবে। অ্যাফপেইং হচ্ছে একটা রিভিউ সাইট। এখানে অনেক সিপিএ মার্কেটপ্লেসের তথ্য এবং রিভিউ পাওয়া যাবে। এই সাইট থেকে ভালো রিভিউ এবং রেটিং দেখে যে কোন সিপিএ মার্কেটপ্লেসে রেজিস্ট্রেশন করা যাবে। সব সিপিএ নেটওয়ার্ক-এ রেজিস্ট্রেশন প্রোসেস প্রায় একই ধরনের হয়ে থাকে। প্রথমে যে কোন একটি নেটওয়ার্ক ওপেন করতে হবে। আমরা G4Offers এই নেটওয়ার্ক ওপেন করবো। এখানে আমরা যখন কাজ করতে যাবো তখন রেজিস্ট্রেশন করতে হবে Publisher / Affiliate হিসেবে। আমরা এখানে কাজ করতে যাচ্ছি মার্কটার হিসেবে এজন্য এখানে আমরা পাবলিশার হিসেবে রেজিস্ট্রেশন করবো। পাবলিশার হিসেবে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য ক্লিক করাতে আমাকে জিজ্ঞাসা করছে আমি আসলে কিভাবে এই সাইট থেকে টাকা ইনকাম করতে চাচ্ছি । আমরা এখানে দিয়ে দেবো General Affiliate Sign Up. এর অর্থ হচ্ছে আমি এফিলিয়েট হিসেবে কাজ করে টাকা ইনকাম করতে চাচ্ছি। এখানে ফর্মে যে তথ্য চাচ্ছে তা দিয়ে দিতে হবে। এই ফর্মের উপর ভিত্তি করেই একাউন্টের অ্যাপরুভাল বা রিজেক্ট হবে। এখানে খুব ভালোভাবে তাদের কনভেন্স করতে হবে। Your Website এর ঘরে ওয়েবসাইটের অ্যাড্রেস দিতে হবে। How Long Have You Been An Affiliate এর ঘরে লিখতে হবে এফিলিয়েট মার্কেটিং এ কত দিন যাবত কাজ করছি। এফিলিয়েট মার্কেটপ্লেসে কাজ করে থাকলে বা না থাকলেও এই কথটা কিছু পরিবর্তন লিখে দিতে হবে যে, “I have been working more than 2 years in affiliate marketing. At this time i am working on JVZoo and Clickbank and i am selling affiliate products in Make Money Online and Helath Niche.”

এর পরের ফিল্ড এ জানতে চাচ্ছে প্রতি মাসে পেইড এ্যাডভারটাইজমেনট বাজেট কত। এখানে আমরা দিয়ে দিতে পারি ২০০/৫০০ ডলার। এরপর জানতে চাচ্ছে প্রতি মাসে রেভিনিউ কেমন আসে। মানে কেমন টাকা ইনকাম করছি। এখানে যেটা সত্য সেটা লিখব। তবে ইনকাম না থাকলে সিপিএ মার্কেটপ্লেস একাউন্ট এর অ্যাপরুভাল দিতে চায়না। এর পর জিজ্ঞাসা করছে এই মুহূর্তে কোন এফিলিয়েট মার্কেটপ্লেসে কাজ করি কিনা। এখানে এফিলিয়েট মার্কেটপ্লেসের নাম দিতে হবে যেমনঃ JVZoo / CJ / Clickbank / WarriorPlus ইত্যাদি। এর পর What Vericals/Niches Are You Interested: জিজ্ঞাসা করছে কোন নিশ নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী। এখানে আমরা যেই নিশ নিয়ে কাজ করতে চাচ্ছি সেটা লিখে দিতে হবে। যেমন হতে পারে Make Money Online / Health / Travel ইত্যাদি। What traffic sources do you plan to use: এখানে বলতে হবে কোন ধরনের ট্রাফিক পাঠাবো। এখানে পেইড সোর্স দিলে তারা বিবেচনা করে থাকে। এখানে লিখতে পারি  PPC, PPV এবং Email ট্রাফিক।

প্রায় সব সিপিএ নেটওয়ার্ক সাইটে প্রোমশন মেথড অথবা প্ল্যান সম্পর্কে জানতে চায়। এই জন্য নিচেরএই লেখাটুকু সামান্য কিছু কপি-পেস্ট করে দিতে হবে।

I am planning to advertise my links and earning money by creating websites, youtube videos and also advertising with ppc and ppv (bing ads, facebook ads and leadimpact). I plan on making a website for each niche I have and also plan on doing some SEO to get it high on Googles ranking system. I have been motivated by various people to start earning money on the web and I will dedicate a few hours of my day to achieve this. I hope to be earning with your website soon.

যদি বলে- Incentive Traffic: Yes/No. তাহলে No দিতে হবে। ইসসেনটিভ ট্রাফিক মানে হচ্ছে ঘুষ দিয়ে ট্রাফিক আনা হবে কিনা।

Why should we approve your application: এইখানে জিজ্ঞাসা করছে কেন তারা কাজ করার সুযোগ দেবে? এখানে লিখতে হবে এফিলিয়েট মার্কেটিং এ কাজ করছি এবং চাচ্ছি সিপিএ ইন্ডাস্টিতে কাজ শুরু করতে। এই নেটওয়ার্ক সম্পর্কে অনেক ভালো কথা শুনেছি এবং চাচ্ছি এখানে কাজ করতে। এর পর জিজ্ঞাসা করছে যদি তারা অ্যাপরুভাল দেয় তাহলে কবে থেকে কাজ শুরু করা হবে। এই যায়গায় বলতে হবে ৭ দিনের মত সময় লাগবে। কারণ প্রথমে অফার গুলো ভালোভাবে দেখতে হবে, এর পর ওই অফারের জন্য সেলস ফানেল রেডি করে নিতে নুন্যতম ৭ দিন সময় লাগবে। এর পর ক্যাপচা কোড দিয়ে একাউন্ট এর জন্য রিকোয়েস্ট করতে হবে। তারা ২৪ থেকে ৭২ ঘণ্টা এ্যাপ্লিকেশন রিভিউ এর জন্য রাখবে। এর পর ইমেইল এ জানাবে যে তারা কি পারমিশন দেবে কি দেবেনা। তারপর তারা যেই ডিরেকশন দেবে সেই অনুযায়ী কাজ করতে হবে।

উপরে উল্লেখিত পদ্ধতি সমুহ অনুসরন করে সিপিএ মার্কেটিং শুরু করা যায়।

Leave a Reply