ফেসবুক থেকে আয় করার প্রক্রিয়া

১) এ্যাড ব্রেকস পদ্ধতি:

ফেসবুক কতৃপক্ষ ফেসবুক থেকে আয় করার সুযোগ করে দিয়েছে। নয়টি ভাষায় বিশ্বের ৩২টি দেশে ফেসবুক এই সুবিধা চালু করেছে। সম্প্রতি এ্যাড ব্রেকস এর মাধ্যমে বাংলাদেশি ও বাংলাভাষীদের জন্য এই সুযোগটি করে দিয়েছে ফেসবুক।ব্যবহারকারীর চাহিদা মেটাতে পারলেই এ্যাড ব্রেকস থেকে সহজে বিজ্ঞাপন পাওয়া যাবে। যে বিষয়ের উপরে ব্যবহারকারীর আগ্রহ আছে এমন বিষয়ই বেশি ভিউ হয়। আর যত ভিউ হবে আয়ও তত বেশি হবে।কমিউনিটির মানুষের জীবন গড়তে অর্থপূর্ণ ও জ্ঞান সম্পন্ন কনটেন্ট তৈরি করলে দর্শক যেমন বাড়বে তেমনি আয়ও বাড়বে। নারী, শিশু, কিশোর, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর উপযোগী কিংবা চলমান ঘটনা প্রবাহের সঙ্গে সম্পৃক্ত বিষয়ক ভিডিও কনন্টেন্টে দর্শকের আগ্রহ বেশি থাকায় এটিতে সফলতার সম্ভবনা বেশী। দুর্বোধ্য বিষয়কে দর্শকের কাছে প্রাণবন্ত ভিডিও চিত্রে উপস্থাপনা, টিপস, মটিভেশনাল স্পিচ, ই-শিক্ষা, ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণ ভিডিওর প্রতি মানুষ আকৃষ্ট হবে। সাধারণত ১০ মিনিটের বেশি দীর্ঘ ভিডিও কনটেন্ট থেকে আয় বেশি হয়। তবে অবশ্যই এসব ভিডিও কনটেন্ট প্রাসঙ্গিক হতে হবে।কনটেন্টের উপর দর্শক বা ফলোয়ারদের মনোযোগ ধরে রাখতে বা দর্শকদের ফিরিয়ে আনতে সক্ষম এমন দর্শনীয় ও ঐতিহাসিক স্থানের পরিচিতি, ভ্রমণ ইত্যাদির উপর ভিডিও কনটেন্ট তৈরী করতে হবে।লাইভ ভিডিও থেকেও সহজেই এ্যাড ব্রেকসমাধ্যমে আয় করা যায়। এক্ষেত্রে কমপক্ষে ৪ মিনিট লাইভে থাকতে হবে। তাহলে পাওয়াযাবে ১৫ সেকেন্ডের বিজ্ঞাপন-বিরতি থেকে আয়ের সুযোগ। এজন্য ভিডিওটি অন্তত ৩০০ জনকে একসাথে দেখতে হবে। ভালো আয়ের জন্য ভিডিওর মধ্যে প্রকাশিত বিজ্ঞাপনটি প্রচারের পরেও যেন অন্তত ২০ সেকেন্ড দর্শক ভিডিওটি দেখেন সেদিকে নজর থাকতে হবে।পেইজে আপলোড করা ভিডিওর মধ্যে প্রকাশিত বিজ্ঞাপন থেকে প্রকাশককে অর্থ দেবে ফেসবুক। ফলে পেইজে যত বেশি ও দীর্ঘ ভিডিও থাকবে, বিজ্ঞাপন ব্যবহারের সুযোগও ততটা বাড়বে।




এ্যাড ব্রেকস কি?:

এক কথায় এ্যাড ব্রেকস হলো বিজ্ঞাপন বিরতি। ফেসবুক পেইজে প্রকাশ করা নিজস্ব ভিডিওর মধ্যে বিজ্ঞাপন প্রচার করাটাই হচ্ছে এ্যাড ব্রেকস। বাংলাদেশ থেকে এখন চাইলেই ফেসবুক পেইজে ভিডিও আপলোড করে কিংবা আগের আপলোডকৃত ভিডিওর মধ্যে বিজ্ঞাপনবিরতির সুযোগ গ্রহণ করে আয় করা যাবে। ভিডিওতে বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষাতেই এ সুবিধা রয়েছে। এ্যাড ব্রেকস সুবিধার মাধ্যমে ফেসবুকে দেওয়া দীর্ঘ সময়ের ভিডিওগুলোর মাধ্যমে পেইজের ফলোয়ারও বাড়ানো যাবে।

বিজ্ঞাপন পাওয়া যাবে কিভাবে?

বিজ্ঞাপন পেতে ফেসবুক ব্যবহারকারীকে কোনো কষ্টই করতে হবে না। ফেসবুক থেকেই এই বিজ্ঞাপন দেওয়া হবে। ব্যবহারকারীকে কেবল ফেসবুকে ‘মনিটাইজেশন’ নীতিমালার অধীনে থাকতে হবে। নীতিমালার অধীনে যেসব বিজ্ঞাপনদাতা ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়, সেসব বিজ্ঞাপনগুলিফেসবুক ব্যবহারকারী বা নির্মাতাদের ফেসবুক পেইজের ভিডিওর মধ্যে প্রচার করবে ফেসবুক কতৃপক্ষ। বিজ্ঞাপন দাতাদের প্রদত্ত অর্থ থেকেই ফেসবুক ব্যবহারকারী বা ভিডিওনির্মাতাদের এই মূল্য পরিশোধ করা হবে।

এ্যাড ব্রেকস কিভাবে চালু করা যায়?:

এ্যাড ব্রেকস চালু করতে প্রথমেই ফেসবুক ব্যবহারকারীর প্রোফাইলের অধীনে একটি স্বতন্ত্র পেইজ থাকতে হবে। যদি কোনো ফ্যান পেইজ না থাকে তবে প্রথমেই একটি ফ্যান পেইজ তৈরি করে নিতে হবে। এটি যেকোনো ধরনের পেইজ হতে পারে। ফেসবুক পেইজের একেবারে উপরের হোম ট্যাবের পাশেই থাকা ক্রিয়েট ট্যাবে ক্লিক করে সহজেই একটি পেজ তৈরি করা যায়।এরপর এই পেইজেই সৃজনশীল ভিডিও আপলোড করতে হবে। আর পেইজ খুলে ভিডিও আপলোড করার সঙ্গে সঙ্গেই কিন্তু আয় করা যায় না। এজন্য ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করতে হবে। আবেদনকারীর বয়স হতে হবে ১৮ বছর।

পেইজে এ্যাড ব্রেকস চালু করার নিয়ম:

 এ্যাড ব্রেকস সুবিধা চালু করতে প্রথমেই ফেসবুকের বিজনেস বিভাগে যেতে হবে। সেখান থেকে ক্রিয়েটর ক্যাটাগরিতে গিয়ে মনিটাইজেশন অপশনটি অন করতে হবে। এটি অন করলেই কিন্তু পেইজে আপলোড করা ভিডিও আয়ের যোগ্য হবে না। সবার আগে পেইজের যোগ্যতা যাচাই করতে হবে।

পেইজের যোগ্যতা যাচাই ও ব্যবস্থাপনা:

ফেসবুকপেইজের যোগ্যতা যাচাই করন ও ব্যবস্থাপনার জন্য ফেসবুকে প্রোফাইল থেকে https://www.facebook.com/business/m/join-ad-breaks ঠিকানায় গিয়ে চেক এলিজিবিলিটি অপশন থেকে সহজেই জানা যাবেএ্যাড ব্রেকসচালু করতে ফেসবুক পেইজটির কেথায় কোথায় ঘাটতি আছে। জানা যাবে কোন কোন যোগ্যতায় পেইজটিপিছিয়ে রয়েছে। আর পেইজটি যোগ্য হওয়ার পরেই বিবেচনায় আসবে কনটেন্টের যোগ্যতার বিষয়।আরফেসবুক পেইজের https://www.facebook.com/creator/studio ঠিকানায় গিয়ে পেইজ ও কনটেন্টের বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে। দক্ষতা যদি শর্তের সঙ্গে না মিলে তাহলে ফেসবুক ফলোয়ার, ভিডিও ভিউয়ার ও মনিটাইজেশন এলিজিবিলিটি স্ট্যান্ডার্ডসহ কমপ্লায়েন্সের ওপর একটি গ্রাফিকস প্রেজন্টেশন দেখা যাবে। যেখানে প্রতিটি পেইজের যোগ্যতা অর্জনের অগ্রগতি ট্র্যাক করা যাবে। এছাড়া মনিটাইজেশন এলিজিবিলিটি স্ট্যান্ডার্ডস কমপ্লায়েন্সের বিষয়ে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে প্রকাশক ও ক্রিয়েটর ষ্টুডিওতে একটি নতুন ভিজুয়ালাইজেশন দেখা যাবে। এখান থেকে জানা যাবে পলিসি ভঙ্গ করা হলে ফেসবুক থেকে আয় করার ক্ষেত্রে যোগ্যতার ওপর কী ধরনের প্রভাব ফেলবে। এছাড়াও  এখানেযেসকল নিয়ম নিয়মভঙ্গ করা হয়েছে তার তালিকা দেখা যাবে এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে ওই তালিকা থেকে সরাসরি আবেদন করা যাবে।

ভিডিওতে এ্যাড ব্রেকস যুক্ত করার নিয়ম:

নতুন ভিডিওতে এ্যাড ব্রেকস সুবিধা যোগ করার জন্য ক্রিয়েটর ষ্টুডিওর হোম ট্যাব থেকে ভিডিও বিভাগে গিয়ে ভিডিও আপলোড করেএ্যাড ব্রেকসনির্বাচন করতে হবে। তখন বিজ্ঞাপন প্রকাশের জন্য দুইটি অপশন আসবে। একটি হচ্ছে স্বয়ংক্রিয় নির্বাচন পদ্ধতি। অন্যটি পছন্দের পদ্ধতি। পছন্দের ক্ষেত্রে নির্বাচন করে দিতে হবে ৬০ ও ১২০ সেকেন্ডের মধ্যে কোথায় বিজ্ঞাপনটি বসবে। এরপর পাবলিশড করলেই হয়ে যাবে।আর আগের আপলোড করা ভিডিওতে এই সুবিধা যোগ করতে হলে ক্রিয়েটর ষ্টুডিও পেইজের বাম পাশের নেভিগেশন থেকে মনিটাইজেশন বিভাগে যেতে হবে। সেখান থেকে এ্যাড ব্রেকসঅপশন নির্বাচন করে ড্রপডাউন বক্স থেকে ভিডিওটি নির্বাচন করতে হবে। এরপর এডিট ভিডিও অপশনে গিয়ে ভিডিও কম্পোজারের ডান দিকের মেনু থেকে এ্যাড ব্রেকসসিলেক্ট করতে হবে।

ফেসবুক পেইজে পোস্ট করা ভিডিওর যোগ্যতা?:

আপলোড করা ভিডিওটি হতে হবে নিরাপদ এবং অথেনটিক। স্থির চিত্র বা ছবি দিয়ে স্লাইড করা এ্যানিমেশন নয়, সচল ভিডিও হতে হবে। ভিডিওটি অবশ্যই ব্যবহারকারীর নিজস্ব ও কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড হতে হবে। ফেসবুক পেইজ থেকে এ্যাড ব্রেকস এর মাধ্যমে আয়ের যোগ্য হতে হলে ন্যূনতম ১০ হাজার ফলোয়ার থাকতে হবে। পেইজে গত ৬০ দিনে ন্যূনতম তিন মিনিট দৈর্ঘ্যের এমন একটি ভিডিও থাকতে হবে। ভিডিওগুলো কমপক্ষে ৩০ হাজার বার দেখা হয়েছে এবং প্রত্যেকে অন্তত এক মিনিট সময় নিয়ে ভিডিওটি দেখেছেন। ভিডিওর সঙ্গে টাইটেল ও সংক্ষিপ্ত বিবরণ থাকতে হবে।এসব বিবেচনায় যখনই ফেসবুক পেইজটিএ্যাড ব্রেকসের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবে, তখন আপলোড করা ভিডিওতে এ্যাড চালু করা যাবে। এছাড়া যোগ্য হওয়ার পর ফেসবুক পেইজে একসঙ্গে একাধিক ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে পেইজের উপস্থিতি বাড়ানোযাবে এবং সেখান থেকে আয় করা যাবে।

পেইজে পোস্ট করারক্ষেত্রে অযোগ্য ভিডিও:

একই ভিডিও বারবার দিয়ে ন্যূনতম সময় পূরণ করা অথবা ভিডিও’র শিরোনামের সঙ্গে ভিডিও’র অমিল। ধর্মীয়, সামাজিক, রাজনৈতিক বা জাতিগত ইত্যাদি ক্ষেত্রে অশ্লীল, অসঙ্গতিপূর্ণ টাইটেল ও ভিডিও। কপিরাইট বিধি-লঙ্ঘন করে চুরি বা শেয়ার করা ভিডিও।ভুয়া কোনও ভিডিও পোস্ট করলে এখানে কালো তালিকাভুক্ত হয়ে কোনও আয় করা যাবেনা।

এ্যাড ব্রেকস এর মাধ্যমে আয়ের পূর্বশর্ত :

ফেসবুক এ্যাড ব্রেকস থেকে আয়ের পূর্বশর্ত হলো ভিডিওটি অবশ্যই নিজস্ব হতে হবে। চুরি বা শেয়ার করা কোনো ভিডিও হলে চলবে না। অর্থাৎ ভুয়া কোনো ভিডিও পোস্ট করলে প্রকাশক কিংবা নির্মাতা উভয়েই এখানে কালো তালিকাভুক্ত হয়ে আর কোনো আয় করতে পারবেন না। মূলত পেইজে আপলোড করা ভিডিওর অভ্যন্তরে প্রকাশিত বিজ্ঞাপন থেকে প্রকাশককে অর্থ দেবে ফেসবুক। ফলে পেইজে যত বেশি ও দীর্ঘ ভিডিও থাকবে, বিজ্ঞাপন ব্যবহারের সুযোগও ততটা বাড়বে। সঙ্গে সঙ্গে আয়ের পাল্লাও ভারী হবে।

২) ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল পদ্ধতি:

আধুনিক জীবনযাত্রায় ফেসবুক অনেক দিন ধরেই একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে জড়িয়ে আসে। ফেসবুক এখন শুধু সামাজিক যোগাযোগের একটি মাধ্যম নয় বরং দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সংবাদও পাওয়া যায় এখান থেকে।অনলাইন সংবাদমাধ্যমটি কতটা পপুলার তার ওপর ভিত্তি করে নির্ভর করে আয় কত হবে। ওয়েবসাইটের ভাষা বাংলা নাকি ইংরেজিই সেটি কোনো বিষয় নয়। দেশে বা বিদেশে যেখান থেকেই পাঠক পড়বে সেখান থেকেই আয় এ্যাকাউন্টে যোগ হবে।মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়ার মতো বড় বড় দেশগুলোতে পাঠক থাকলে আয় তুলনামূলকভাবে বেশি হবে। এখন বাংলাদেশ থেকে মাসে লাখ লাখ ডলার আয় করে এমন ওয়েবসাইটও রয়েছে। দ্রুত খবর পড়ার সুবিধা দিতে ফেসবুক নিয়ে এসেছে ‘ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল’। একজন ইন্টারনেট ব্যবহারকারী তার পছন্দসই খবরটি পড়তে পারবেন ফেসবুক থেকেই।নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ব্যবহারকারীদের আরও বেশি সময় ধরে রাখা, দ্রুত সাইটে প্রবেশ (লোডিং টাইম) করা, নিউজ সাইটগুলো আরও বেশি ফেসবুকমুখী হওয়া, বিজ্ঞাপনদাতাদের টার্গেট পিপল ধরা এবং ওয়েবসাইটের মালিকদের সঙ্গে রেভিনিউ শেয়ার করার জন্য ফেসবুক এই ফিচার চালু করেছে ।বিশ্বের বড় বড় সংবাদমাধ্যম এরই মধ্যে ফেসবুকের ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল ফিচারটির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে।




 

ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল কি?

এটি ফেসবুকের একটি নতুন সিস্টেম যার মাধ্যমে ওয়েবসাইটে করা যেকোনো পোস্ট ফেসবুক পেইজে শেয়ার করলে স্মার্টফোন ইউজারেরা কয়েক সেকেন্ডের মধ্য সেটি ফেসবুকেই পড়তে পারবেন। তার জন্য সময় এবং MB খরচ করে নতুন কোনো ব্রাউজারে যেতে হবেনা। এখন খবরের শিরোনাম বা লিংকে শুধু একটা ক্লিক করলেই বিদ্যুৎ গতিতে ফেসবুকেই সেই খবরটি চলে আসে। দ্রুত খবর পড়ার সুবিধা দিতে ফেসবুক নিয়ে এসেছে ‘ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল’। এতে একটি খবরের সঙ্গে বজ্রর মতো চিহ্ন দেওয়া থাকে সে শিরোনাম বা লিংকে শুধু একটা ক্লিক করলেই বজ্র গতিতে ফেসবুকেই পাওয়া যায় খবরটি।ওয়েবসাইটে করা পোস্টটি যখন পেইজে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল হিসেবে পোস্ট করা হবে তখন সেটি পড়ার জন্য ইউজারদের এমবি খরচ করে নতুন কোনো ট্যাবে বা ব্রাউজারে যেতে হবে না। ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল শুধু স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরাই দেখতে পারবেন। ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এক ধরনের অ্যাপও। ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলে সংযুক্ত কোনো নিউজ লিংকে ক্লিক করার সঙ্গে সঙ্গে সেটি মোবাইলে চলে আসবে, কারণ এটি ১০ গুণ দ্রুত কাজ করে।ব্যবহারকারীরা এখন তৎক্ষণাৎ হাই-রেজল্যুশনে যে কোনো ছবি জুম করতে পারবেন এবং কোনো বাধা ছাড়াই স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলতে থাকা ভিডিও দেখতে পারবেন।এক্ষেত্রে মনেই হবে না যে এটি ইন্টারনেট থেকে লোড হয়েছে, বরং মনে হবে এটি যেন কোনো সেইভ করে রাখা ফাইলক্লিক করার সঙ্গে সঙ্গেই খুলে গেল।

ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল যুক্ত করতে যা যা প্রয়োজন:

১) সাইটের জন্য একটি ফেসবুক পেইজ থাকতে হবে।

২) সাইটে নূন্যতম ১০টি আর্টিকেল থাকতে হবে।

৩) সাইটে নিয়মিত লেখা প্রকাশ করতে হবে।

৪) ফেসবুক পেজ এ্যাপ ডেভলপার প্লাটফর্ম অন করতে হবে।

৫) ব্লগের এডমিন প্যানেলে গিয়ে “Instant Articles for WP” এই প্লাগইনটি ইন্সস্টল করতে হবে।

৬) ব্যাংক এ্যাকাউন্টথাকতে হবে।

যেভাবে ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল চালু করা যায়:

৬টি ধাপ পেরিয়ে ওয়েবসাইটে ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল চালু করা যাবে।

১ম ধাপ: প্রথমে https://instantarticles.fb.com/ এই লিঙ্কে সাইন আপ করতে হবে। তারপর পেইজটি সিলেক্ট করে ‘Access Instant Articles Tools’ বাটনে ক্লিক করতে হবে। এখানে প্রতিটি স্টেপ ফেসবুক দেখিয়ে দিচ্ছে কীভাবে করতে হবে।

২য় ধাপ: সাইন আপ করার পর নেক্সট পেইজে নিয়ে যাবে। এখানে পেইজ সিলেক্ট করতে বলা হবে। যে পেইজটিতে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল সিস্টেম চালু করা হবে ঠিক সেই পেইজটি সিলেক্ট করতে হবে। এরপর এখানে যা যা চাওয়া হয় তা পূরন করতে হবে। ফেসবুকের যেসব শর্ত রয়েছে তার সঙ্গে একমত, এই মর্মে বক্সে টিক মার্ক করতে হবে এবং ‘ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল টুলস’ চালু করতে হবে।

৩য় ধাপ: এরপর সিলেক্ট করা পেইজে যেতে হবে। এখান থেকে Publishing Tools এ ক্লিক করতে হবে। ক্লিক করার পর বাম পাশে নিচে ‘Instant Articles’ নামে নতুন অপশন দেখা যাবে। এখান থেকে ‘কনফিগারেশন’ এ ক্লিক করতে হবে।

৪র্থ ধাপ: এবার ‘Authorize your site’ এ ক্লিক করতে হবে।

৫ম ধাপ: অথরাইজ ইউর সাইট এ ক্লিক করার পর নিচে নতুন একটি বক্সে নিয়ে যাবে, সেখানে ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটের লিংক দিতে হবে। যদি ওয়ার্ডপ্রেসের ওয়েবসাইট হয়ে থাকে তবে অবশ্যই  সাইটে ‘ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল’ নামে নতুন একটি ‘অ্যাড অনস’ চালু করতে হবে তারপরই ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের জন্য লিংক সাবমিট করতে হবে। HTML ওয়েবসাইট হলে সোজা ওয়েবসাইটের লিংক বসিয়ে ক্লেম করতে হবে।

৬ষ্ঠ ধাপ: ওয়েবসাইটের লিংক সঠিকভাবে ক্লেম করার পর ফেসবুক অটোমেটিক ওয়েবসাইটে করা সব পোস্ট ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের টুলসে নিয়ে আসবে। সেখান থেকে ফেসবুক ৫টি আর্টিকেল নিজে থেকে ইসিলেক্ট করে নেবে রিভিউয়ের জন্য।

সাধারনত রিভিউ রেজাল্ট ২ থেকে ৩ দিনের মধ্যে পাওয়া যাবে। লেখা যদি ইউনিক হয় আর কোন সমস্যা না থাকলে একাউন্ট ফেসবুক ইন্সট্যান্ট আর্টিকেলের আন্ডারে নিয়ে যাবে এবং একাউন্ট ফেসবুক ইন্সট্যান্ট আর্টিকেল হিসেবে চালু হবে। ইন্সট্যান্ট আর্টিকেল একটিভ হয়ে গেলে ডেভেলপার এ্যাপে গিয়ে ইনকাম কত হল তা দেখা যাবে।

ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এর সুবিধা:

  • আর্টিকেল খুব দ্রুত লোড হবে।
  • আর্টিকেল ক্যাশ থাকবে বলে পরের আর্টিকেল থেকে আবার এটাতে এলে নতুন করে লোড না হয়ে ক্যাশ থেকে লোড হবে।
  • ফেসবুক পেইজে আর্টিকেলের স্ট্যাটিকস পাওয়া যাবে। মনিটাইজেশন এ্যাড করে রেভিনিউ জেনারেট করা যাবে।

ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এর অসুবিধা:

  • সাইটের উইজেট বিশেষত ওয়ার্ডপ্রেসের অনেক শর্ট কোড এতে কাজ করবে না।
  • মেইন সাইটের ভিজিটর কমে যাবে।
  • তবে সাইটের র‍্যাংকিং কমবে না।

বিজ্ঞাপন কীভাবে আসবে?

ফেসবুক ওয়েবসাইট থেকে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের মাধ্যমে করা ফেসবুক পেইজের পোস্টের সঙ্গে বিজ্ঞাপন প্রকাশ করবে এবং সেই বিজ্ঞাপনের জন্যই মূলত ফেসবুক টাকা দেবে। ওয়েবসাইটিতে যদি গুগুল এ্যাডসেন্স যুক্ত করাও থাকে তবে সেটি ‘ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল’ এর উপর কোনো ধরনের প্রভাব ফেলবে না।

কিভাবে ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার যুক্ত করা যায়:

ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার যুক্ত করার জন্য পেইজের ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল অপশনে যেতে হবে। সেখান থেকে Audience Network এ যেতে হবে, তারপর Payout এ ক্লিক করতে হবে, এরপর  Register a New Company তে ক্লিক করে বিস্তারিত তথ্য দিতে হবে যা শুধুমাত্র ফেসবুকই দেখতে পাবে। বিস্তারিত তথ্য দেওয়ার পর Continue তে ক্লিক করতে হবে, তাপর Payment Information এ ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার দিতে হবে। এভাবেই একাউন্ট নাম্বার যুক্ত হয়ে যাবে।

টাকা কিভাবে আসবে?

ফেসবুক এর যে পেইজে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল করা হবে সেই পেইজকে বিজনেস পেইজ বলা হয়। এখানে ড্যাশ বোর্ডের মানিটাইজ অংশ থেকে টাকার পরিমাণ দেখা যাবে। টাকা সরাসরি ব্যাংক এ্যাকাউন্টে আসবে। অথবা ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল যদি কোনো এজেন্সি দেখে তাহলে তারা নিজ দায়িত্বে টাকা নিয়ে এসে চেক বা ক্যাশ পেমেন্ট এর মাধ্যমে দেবে। অন্তত ১০০ ডলার না হলে ফেসবুক কোনো পেমেন্ট পাঠায় না। আর যদি ১০ হাজারের ডলারের বেশি হয় তাহলে ব্যাংকে গিয়ে সি ফর্ম পূরণ করে দিতে হবে। এর সঙ্গে ফেসবুক থেকে পাঠানো ইনভয়েস সংযুক্ত করে দিতে হবে। এরপর যথা সময়ে কোনো বাধা ছাড়াই টাকা ব্যাংক এ্যাকাউন্টে চলে আসবে।




Leave a Reply